আমার ইনসাফ চাই।
আমার শুধু আমারটুকুই চাই।
মানে আমার ঠিক যতটুকু দেই,
ঠিকঠাক সেইটুকুর পাই পাই কইরা দাম চাই।
আমি ভেজাল হিসাবে যাই না।
হিসাবে কম কিছু মানি না।
আমি আমার হকের পুরাটাই চাই।
হিসাব সোজা। ফুল স্টপ।


মানে হইলো আমি ইনসাফ চাই।
আমার ঘন্টারে তুমি সেকেন্ড বানাবা, আমি মানি না।
আমার শরীররে তুমি ছিবড়া বানাবা, আর সিক লিভ চিনবা না?
আমি মানি না।
একই কাজ তবু মজুরি তফাৎ গুনবা?
তামশা নাকি? তোমার এই ব্যাটাগিরি হিসাব আমি কবুল করি না।
আমার হকের বেতন তুমি মাইরা খাবা? তাও একবার না, দুইবার না।
মানে এই মাইরা খাওয়াটারেই নিয়ম আর বেতন দেয়াটারে অনিয়ম করবা?
কি বেশরম চাওয়া তোমার!
আর এইটাও মানতে কইতাসো আমারে?
তোমার নিয়ম আমি স্রেফ পুছি না।
তোমার লোভে তুমি আমারে পিষা মারবা, কয়লা করবা।
আর একটা মিটিঙে আমার লাশের দরদাম ঠিক করবা?
হা হা। একটা মিটিং নাকি আমার লাশ ওজন কইরা ভিক্ষা ধার্য করবে?
মানে আমার খুনের হিসাব চুকাবে।
আমি তোমার ভিক্ষা জাস্ট ধরি না।


আমি ইনসাফ চাই।
সেই চাওয়াটারে থামানোর একই তরিকা তুমি কয় দিন চালাবা?
তুমি গুলি করবা? আমি ধরো মইরাও মরলাম না।
তুমি গুম করবা? আমি হারাইয়াও কোথাও রইয়া গেলাম।
তুমি আমারে মাইরা আমার কাঁধেই মামলা দিবা?
আমি তোমার নষ্ট আইনরে গুনলাম-ই না।
তুমি ছাটাই করবা? কারখানায় তালা লাগাইয়া আমারে কইবা – “গেট লস্ট”?
আমি “লস্ট” হইলাম না।
তোমার হুকুমরে নিকুচি কইরাই আমি খাড়া উপস্থিত রইলাম। এই জমিনে।
মানে কোনো ভাবেই আমি আর ডরাইলাম না, মাথা নামাইলাম না।
আমি ভাঙলাম না।


আমি ইনসাফ চাই।
তুমি ভাবতে পারো দিবা না।
তুমি আমার ঘামের নুন খাইয়া নিমকহারামী করতেই পারো।
তুমি ভুইলা যাইতে পারো যে আমার হক দিতে তুমি বাধ্য।
কিন্তু তোমার অবাধ্যতা আমি বরদাস্ত করবো এইটা ভাবো কেন?
মনে রাইখো ইনসাফের ডাকে ইনকিলাব আসে। ইতিহাস স্বাক্ষী।
আমি কয়া দিলাম।
এই সময়ে লিখা রাখ, সময় আসবেই,
জুলুমের স্রোত ঘুরবেই।
তুমি, তোমরা বাধ্য হবা আমার ইনসাফ আমারে দিতে।


আমি তাই ইনসাফ চাই।
আমি আমার ভাতের এক একটা দানার হিসাব বুইঝা নিতে চাই।
আমার প্রত্যেকটা মিনিট-সেকেন্ডের দাম গুইনা নিতে চাই।
আমি আমার জানের পুরাদম হেফাজত চাই।
আমার খুনের হুকুম দেবার
তোমার ঠোঁটের প্রত্যেকটা ওঠানামার বিচার চাই।
আমি আমার হক চাই।
হিসাব সহজ। ফুল স্টপ।

অনুপ্রেরণা: ম্যায় ইনকার করতা হু/ আমির আজিজ